Freelancer Hridoy
Google Adsense

Google Adsense নিয়ে যত প্রশ্ন পর্ব ১

Google Adsense নিয়ে যত প্রশ্ন পর্ব ১

ব্লগিং করে কি ইনকাম সম্ভব?

আসলে এই কথাটা অনেকেই জিজ্ঞেস করে,যে ব্লগিং করে ইনকাম সম্ভব কী না।
আবার এটাও বলে যে৷ মোবাইল দিয়ে ব্লগিং করে ইনকাম করা সম্ভব কী না।
আজকে আমি এই সকল প্রশ্নের জবাব দিব।

১. ব্লগিং করে কী ইনকাম করা সম্ভব?

হ্যা ভাই ব্লগিং করে ইনকাম সম্ভব।তবে এজন্য কিছুটা পরিশ্রম করা লাগে।
যেমন আপনার একটা ব্লগ ওয়েবসাইট থাকা লাগবে এবং সেই ওয়েবসাইটে গুগল এডস এপ্রুভ করা থাকতে হবে।
আসলে ব্লগিং এর ইনকাম টা আসে এডস এর মাধ্যমে,সেটা যেই কোম্পানির ই হোক না কেন।তবে সবাই Google adsense কে বেশি priority দেয় এর কারন হচ্ছে, Google adsense  অন্যসব এড কোম্পানি থেকে নিরাপদ,বিশ্বাসযোগ্য আর সঠিক ভাবে পেমেন্ট করে।
অন্য যেসব এড এড কোম্পানি গুলো আছে সেগুলো কখনো কখনো পেমেন্ট নিয়ে ঝামেলা করে,আবার ইনকাম ও ঠিক মতো হয়না।
তাই সবাই গুগল এডস কে বেছে নিয়েছে।
কারন এটি সব দিক থেকে সেরা।

তবে Google AdSense এর Approval পাওয়া কিছুটা কষ্টকর।কারন গুগলের যেসকল নীতিমালা আছে সেগুলো যদি আপনার ওয়েবসাইট মেনে না চলে তাহলে কখনোই আপনার ওয়েবসাইট Google adsense এর approval পাবেনা।
সেগুলো নিয়ে একটু আলোচনা করা যাক।

১.Content policy

আপনার ওয়েবসাইটের কন্টেন্ট গুলো যদি গুগল এডসেন্স এর কন্টেন্ট পলিসি মেনে না চলে তাহলে আপনি Google adsense এর  approval পাবেন না।
কি সেই policy গুলো জেনে নেওয়া যাক।
content policy এর প্রথম,শর্ত হচ্ছে আপনার ওয়েবসাইটের যে কন্টেন্ট গুলো আছে সেগুলো unique হতে হবে। সেগুলো copy বা plagiarized হওয়া যাবেনা।
কারন আপনার ওয়েবসাইটে আপনার লেখা আর্টিকেল বাদে যদি অন্য কারো ওয়েবসাইটের আর্টিকেল থাকে তাহলে এরকম হবে।

তাই প্রধান এবং প্রথম শর্ত হচ্ছে কপি মুক্ত পোস্ট বা আর্টিকেল।আর এই পোস্ট গুলো দিয়েই আপনি Google adsense approval পেতে পারবেন শুধু।
যদি আপনার ওয়েবসাইটে অনক কিছু থাকে কিন্তু যদি কো পোস্ট না থাকে তবে আপনি কিন্তু Google adsense approval পাবেন না।কারন Google adsense approval পাওয়ার পূর্বশর্ত হচ্ছে পোস্ট তাও আবার unique হতে হবে।

এবার আসি আসল কথায় যে আপনার পোস্ট বা article গুলো কেমন হতে হবে।
এজন্য কিছু শর্ত আছে।

১.আপনার ওয়েবসাইটে কপিরাইট মুক্ত পোস্ট থাকতে হবে।

২.পোস্ট গুলো অবশ্যই বড় হতে হবে।
এক্ষেত্রে কতটা বড় হতে হবে সে-রকম কোনো ধরাবাঁধা  নিয়ম নেই।
তবে অনেকে মনে করেন যে পোস্ট  গুলো একেকটা ৮০০ থেকে ১০০০ শব্দ বা তার বেশি হলে ভাল হয়।
তাহলে প্রথম  বারেই Google adsense approval পাওয়ার সম্ভবনা রয়েছে।

৩. এখন আপনাকে জানতে হবে যে কতটি পোস্ট থাকা লাগবে আপনার ওয়েবসাইটে google adsense approval পাওয়ার জন্য।
আপনার উচিৎ কমপক্ষে ২৫ টা পোস্ট করে Google adsense এর জন্য apply করা উচিত।
তাহলে Google adsense approval  পেয়ে যাবার সম্ভাবনা থাকে।
যদি আপনার ওয়েবসাইটে এর থেকে বেশি পোস্ট থাকে তবে আরো ভাল হবে আপনার জন্য।
কারন এটা আপনার ওয়েবসাইট কে Google adsense এর approval পেতে খুব সাহায্য করবে।

Google Adsense

৪.কন্টেন্ট অপটিমাইজেশন (content optimization)

কন্টেন্ট অপটিমাইজেশন বলতে বোঝায় আপনার ওয়েবসাইটের কন্টেন্ট গুলোকে seo friendly করা কে।

কন্ট্রাক্টর এর ক্ষেত্রে seo একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।
কারন এই seo এর মাধ্যমে আপনার ওয়েবসাইট এর কন্টেন্ট গুলোকে Google এর সার্চ রেজাল্টে পৌছাতে সাহায্য করে।

আসলে seo এর পূর্ণ রূপ হলো সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন।
এর মানে হলো আপনার ওয়েবসাইট এর সাথে  সার্চ ইঞ্জিনের যে অপটিমাইজেশন সেটাকেই বলা হয় seo আর একটা ওয়েবসাইট এর জন্য এই seo খুব গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

ধরা যাক আপনার একটা খুব ভালোমানের ওয়েবসাইট আছে এবং সেখানে খুব ভালো মানের কন্টেন্ট ও আছে।কিন্তু আপনার ওয়েবসাইটে যদি এসইও করা না থাকে তবে আপনি কিন্তু কোনো ভিজিটর পাবেন না।
কারন এসইও এর কাজ হলো ভিজিটরদের নিয়ে আসা আপনার ওয়েবসাইটে।

আসলে কন্টেন্ট অপটিমাইজেশন বলতে কন্টেন্ট কে এমন ভাবে সাজানো যাতে করে গুগল খুব সহজেই বুঝতে পারে যে আপনার ওয়েবসাইটের কন্টেন্টের ভিতরে কি আছে।
আর একবার যদি গুগল এ বিষয় টা বুঝতে পারে তাহলে আপনার আর কিছুই করা লাগবে না।
যা করার Google করে দিবে।
এখন যদি কেউ গুগলে এসে আপনার ওয়েবসাইট  সম্পর্কিত কোন তথ্য খোজ করে,তবে গুগল তার সামনে আপনার ওয়েবসাইটের কন্টেন্ট গুলোকে রেজাল্ট হিসেবে দেখাবে।
কারন গুগল জেনে গেছে যে আপনার ওয়েবসাইটের কন্টেন্টের ভিতরে কী আছে।

Goggle adsense approvel পাওয়ার জন্য আরো কয়েকটি বিষয় আপনাকে মাথায় রাখতে হবে।
সেগুলো নিচে বলা হলো

১. আপনার ওয়েবসাইটের যে ডোমেইন টা নিবেন সেটা অবশ্যই কিনা হতে হবে।
কারন গুগল ফ্রি ডোমেইনে Google adsense approval দেয় না।
তাই আপনাকে একটি ডোমেইন কিনতে হবে।আর সেই ডোমেইন টা অবশ্যই টপ লেভেলের হতে হবে।
Top level domain বলতে বোঝায় .com,net,org,io,xyz, ইত্যাদি এগুলোকে।

২.Google adsense পাওয়ার জন্য আপনাকে অবশ্যই paid hosying নিতে হবে।
যদিও ফ্রি হোস্টিং এ Google adsense approval দেয়না তারপরও blogger.com এর ফ্রী হোস্টিং এ Google adsense approval দেয়।
কিন্তু এছাড়া অন্য কোন ফ্রী হোস্টিং সার্ভারে Google adsense approval দেয়না।

৩. আপনার ওয়েবসাইটে খুব দ্রুত লোড হয় এরকম theme ব্যবহার করতে হবে।
আর ত্রুটিপূর্ণ theme এড়িয়ে চলতে হবে।
খুব ভারো হয় যদি আপনি একটি theme কিনে ব্যবহার করেন।

পরবর্তী বিষয় গুলো আগামী পর্বে আলোচনা করা হবে সে পর্যন্ত ভালো থাকুন।
পরবর্তী টিউটোরিয়াল এর জন্য অপেক্ষা করুন।

 

Freelancer Hridoy

Freelancer Hridoy

Add comment

Most popular

Most discussed